200 + Whatsapp Status in Bengali With Bengali Status Image

200 + Whatsapp Status in Bengali With Bengali Status Image  :





অলস মেঘের মন , আমার আবছা ঘরের কোণ , চেয়ে রইতো, ছুঁতে চাইতো , তুমি আসবে আর কখন…

মুঠোর ভেতর  আশারই ফুল , তোমার জন্যে আনা , দুজনে মিলে স্বপ্ন রঙে , হোক মনকে জানা।

হয়তো তাঁরার দেশে , হয়তো মেঘের শেষে , আলো জ্বলে আলো নেভে , তোমার কথা ভেবে ।

মায়ার জালে বাঁধা পড়ায় , নিয়েছো যে আমায় মেনে , আমার চেয়ে বেশি তোমায় , আর কে যে বলো চেনে।

ঘুম ভেঙেছে দেখছো পৃথিবীর , কিছু আদুরে সুখের সুরভী..  হাত ধরো…. মন পড়ো , থাকবো দুজন হয়ে জুটি।

তুমি সাথী হয়ে এলে , আমি নয়ন ভরে , জীবন ভরে রাখবো তোমায় আপন করে , সুখে দুঃখে দেখবো তোমায় , প্রেমের প্রদীপ জ্বেলে।

বাতাসের কথা সে তো কথা নয় , রূপকথা ঝরে তার বাঁশিতে ,  আমাদেরও মুখে কোন কথা নেই , শুধু দু’টি আঁখি ভরে রাখে হাসিতে।

এই রাত ডাকে ঐ চাঁদ ডাকে  হায় তুমি কোথায়। ভালবাসার রঙে রঙে , আমি সাজাবো তোমায়।

আর এভাবেই যদি বৃষ্টি নামে , শুরু হবে কিছু কবিতা আবার.. তোর পথে সঙ্গে চলার , খুঁজি অজুহাত গল্প বলার।

আজুহাতের পাহাড় যেমন , হদিশ খুঁজে পায়না , ভালোবাসা দিয়েও তাকে  ধরে রাখা যায় না।

যতদূর আমি হেঁটেছি একা , দেখেছি তোমার ছায়া , তুমিও যেন পাশেই ছিলে , ভেবোনা আমায় দিশেহারা..

কাতর হয়ে থাকি নুয়ে , তোমার প্রেমে মগ্ন থাকি , পাতায় পাতায় গল্প কথায় , তোমায় নিয়ে কাব্য লিখি।

ছেঁড়া পালের জীবন তরী , বাইয়া গেলাম জনম ভর । ঢেউয়ে ঢেউয়ে ভাঙ্গল স্বপন , চিনল না মন আপন পর ।

এক জীবনে কেন আমি , পেলাম শুধু যে তোমায় , মন তোমাকে আরো যেন , অনেক জীবন পেতে চায়।

আমার রাত জাগা তারা , তোমার আকাশ ছোঁয়া বাড়ি , আমি পাইনা ছুঁতে তোমায় , আমার একলা লাগে ভারি।

ভালোলাগে যখন তুমি অনেক ভাল থাকো , মায়াবী ঐ মুখে এক চিলতে হাসি রেখো , এর চেয়ে সুখের কিছু নেই আমার কাছে , এর মাঝে বেঁচে থাকার অর্থ যে আছে ।

মনে এক রাশি প্রেম , হাতে হারমোনিয়াম , ভেবো না বাঁশি হাতে , হ্যামিলনে ছিলাম।

চলোনা দুজনে কাছে আসি , চলোনা মেঘে মেঘে দূরে ভাসি , চলোনা কিছু না মেনে ভালোবাসি , চলোনা সাজাই মিলে সুখেরই পৃথিবী ।

ফিরে যাস কেন এভাবে , কিছু কথা শুনে যা।  এই দুচোখের গভীরে , তোর স্বপ্ন বুনে যা।

মোর আঙ্গিনা ভুলে যেওনা , বাঁধন তোমার ছিরে ফেলো না। আমি আছি রবো তোমার , চিরদিন চিরদিন। বন্ধুর বাড়ির ফুলবাগানে , নানান বর্ণের ফুল...ফুলের গন্ধে মন আনন্দে , ভ্রমর হয় আকুল।

এই বুঝি বয়ে গেল সন্ধ্যা , ভেবে যায় কি জানি কি মনটা , পাখিগুলো নীড়ে ফিরে চলছে ,  গানে গানে কি যে কথা বলছে।

তুমি আমার প্রথম সকাল , একাকি বিকেল ক্লান্ত দুপুর বেলা, , তুমি আমার সারা দিন আমার , তুমি আমার সারা বেলা।

তোমার জন্য এই রোদেলা স্বপ্ন সকাল , তোমার জন্য হাসে অনরল স্নিগ্ধ বিকেল , ভালবাসা নিয়ে নিজে তুমি , ভালোবাসো সব সৃষ্টিকে।

তুমি থাকো দূরে আড়ালে বোঝ না কেন যে আমায় , কতশত বাহানা একটু পাওয়ার আশায়। তুমি একবার বলো যদি, আমি পাড়ি দেবো খরস্রোতা নদী।

টিপ টিপ বৃষ্টিতে, ঝিরি ঝিরি হাওয়ায়  , মন শুধু তোমাকেই চায়। ও চঞ্চলা এই মন, বুঝিনি যে কখন বেঁধেছ প্রেমেরই মায়ায়। মনেরি আয়নায় , হাজারো বায়নায় , তোমাকেই খুব কাছে চাই।

সকল তারকা আকাশের , তোমার দিকে তাকিয়ে আছে রূপের মায়ায় , অসংখ্য , অজস্র মেঘমালা , ছোঁয়া দিয়ে যায় , দেখা দিয়ে যায় ভালবাসার ছোট্ট নীড়ে।

আঁধারের মাঝেও যে তুই , জোছনা নামাস , আমায় ভাষাস.. ,  জ্বলছে আমার ইচ্ছে গুলো রোজ , তোকে পাওয়ার একটু ছোঁয়ার ..

তোমার আঙুলটা পথের দিশারি , তোমার কথা মালা গল্প আমারই , তোমার সীমানা জুড়ে , প্রতিটি রাত প্রহরে , খুঁজে ফিরি আমার আমিকে , হাজার মানুষের ভীড়ে।

হাতে আজ হাত রাখা , জল কাঁচে মন ভাসে , খুব কাছে কল্পনায় , ক্ষণে ক্ষণে ফিরে আসে।

দূরের আকাশ নীল থেকে লাল , গল্পটা পুরোনো , ডুবে ডুবে ভালোবাসি , তুমি না বাসলেও আমি বাসি….

তোমাকে ভালবেসে কোথায় যাব শেষে , জানি না সেই দেশে , চিরাগও আছে কিনা , তবে সে আন্ধারে নিখাদে গান্ধারে , কে তাকে প্রাণ ধারে , প্রেয়সী তোমা বিনা।

দাঁড়িয়ে দুজন ঐ জানালার ধারে , স্বপ্ন নামাই চলো দু'হাত ভরে , তোমার দু'চোখে পৃথিবী দেখি , তোমার ছায়াতে ছবি আঁকি ..

আদর করে হাতটা ধরে , আলতো স্বরে তোমায় ডাকি , মন গহিনে খুব গোপনে , যতন করে আগলে রাখি।

তুমি বৃষ্টি ভালোবাসো জানতাম , তাই বৃষ্টি কে নাম ধরে ডাকতাম। ভেজা জানলার কাঁচে , আঙুল টেনে তোমায় আঁকতাম।

আজ ঠোঁটের কোলাজ থামালো কাজ , মন তোমাকে ছুঁয়ে দিলাম , নাম বুকের বোতাম হারানো খাম , আজ কেনো যে খুঁজে পেলাম।

অবুঝ কথার ভিড়ে , এসেছি আবার ফিরে , দেখো কপালে , আজ ভালোবাসার জ্বর।

মেঘলা আকাশ হাল্কা হাওয়া , যাই ভিজে আর নিজেকে ফিরে পাওয়া। , আধখোলা কাঁচ বৃষ্টি ছোঁয়াচ , তোমার নামে মেঘের খামে , চিঠি দিলাম আজ।

খেয়াল জুড়ে আঁকছে ছবি , তোমার রঙের চাওয়ায় , ভীষণ সুখে কাটছে প্রহর , আজকে তোমায় পাওয়ায় ।

রাজি আছি কাছাকাছি , থাকবি যদি আয় চলে , মিঠে রোদে স্বপ্ন মেখে , নীল পাহাড়ের আঁচলে ।

তোমারই ছবি ভাসে , মনেরই চরিদিকে , চেয়ে চেয়ে থাকি আমি , ভুলে যাই পৃথিবীকে ।

মেঘের দেশে রোদের বাড়ি , পাহাড় কিনারায় , যদি মেঘ পিওনের ডাকে , সেই ছায়ার হদিশ থাকে , রোদের ফালি তাকিয়ে থাকে, আকুল আকাঙ্খায়।  কবে মেঘের পিঠে আসবে খবর , বাড়ির বারান্দায়, ছোট্ট বাগানটায়।

শ্রাবণের বুকে প্রেম , কবিতা যে লিখে যায় , হৃদয়ের মরু পথে , জলছবি থেকে যায়

রাত নেভা রোদ্দুরে , সরে যাও যেই দূরে , ডেকে যায় কাছে চাই , গানেরই সাত সুরে ।

এত এত মনুষের ভীড় , প্রিয় তোমারই মুখখানি  , জীবন চলার পথে সবচেয়ে আপন তোমাকেই শুধু জানি ।

তুমি ছাড়া মন পুড়ে যায় , এই রাত বড়ো অসহায় , জেনে শুনে তবুও মন , তোমাকেই শুধু চায় ।

কত ফেলে আসা স্মৃতি ভর করে , রোজই হৃদয় আঙিনায় ।  সেই চেনা গন্ধরা স্পর্শ করে , ঘিরে থাকে এখনো আমায় ।

অপ্সরা নই আমি নই উর্বশী , রূপসী বলনা বারে বার , ভালোবাসা ভরা আছে , তুমি ছাড়া কাউকে যে , সুন্দর দেখি নাতো আর..

হাত বাড়িয়ে যদি নাও ফিরিয়ে , জেনে রেখো যাবো আমি হারিয়ে । দুহাত ভরে প্রেম নিলাম কুড়িয়ে , দিও না দিও না তুমি তা ফিরিয়ে ।

তুই যদি কথায় ভিজতে চাস , আঁচলে সোহগ মাখবে আকাশ । কাজলের কথাগুলো, কাজলের কথাগুলো , ঠিক বুঝেছে ভালোবাসা ছোঁয়াচে……

মেঘের সাথে মেঘের খেলা , বন্ধ করলো অবহেলা । বন্ধু আমার রইলো কোন দূরে , আমি আজও ভালোবাসি যে তারে ।

দুচোখ ভরে যতই দেখি তোমার হাসি মুখ , মনে পড়ে আমার প্রেমের হারিয়ে যাওয়া সুখ । কত স্মৃতি মনে, আসে ক্ষনে ক্ষনে , ফিরে পাই তোমার মাঝে তাকেই প্রতিদিন ।


তুমি আকাশের ওই নীল , আমি মেঘে মেঘে স্বপ্নিল , তুমি হাওয়া হয়ে আসো, শুধু আমাকেই ভালোবেসো , তুমি মনের আল্পনা, তুমি সেই প্রিয় কল্পনা , তুমি ছুঁয়ে দিলে মন, আমি উড়ব আজীবন ।

আলতো ছোঁয়ায় চোখের চাওয়ায় , পাওয়া না পাওয়ার কি যে নেশা , সেই স্মৃতিটাই আজও হাতরাই , হারিয়ে ফেলা ভালোবাসা ।

আমি না হয় পুরোয় অবুঝ তুমিই তো সব বুঝ , এই অবুঝের ভালটা কি একটু না হয় খুঁজ, ,আমায় তুমি অবুঝ বল সত্যি আমি অবুঝ , অবুঝ বলেই রং ছড়ানো মন যে  আজও সবুজ।

নামিবে আঁধার বেলা ফুরাবার ক্ষণে , মেঘমল্লো বৃষ্টিরও মনে মনে , কদমও গুচ্ছ খোপায় জরায়ে দিয়ে , জলভরা মাঠে নাচিবো তোমায় নিয়ে.. , চলে এসো, চলে এসো এক বরষায় , যদি মন কাদে, তুমি চলে এসো এক বরষায়...

কপালের ঐ টিপ চোখেরই কাজলে, , তোমাকে জড়িয়ে রাখবো প্রেমেরই আঁচলে। রংধনুর রঙে নয়, নয় ঝর্না ধারাতে , তোমার উপমা খুঁজি দু'চোখের তারাতে। খুঁজে খুঁজে দু'চোখ বুঝে পাই তোমায় আরো কাছে , একই ডোরে বাধা দু'জন থাকবো সারা জনম ধরে।

হৃদয় চিরে দেখো তোমারি ছবি , বড় ভালোবাসি তুবও লাজে মরি। , আমারই জীবন শুধুই তোমার , তুমি হীনা সবই যে আঁধার।


ধীরে ধীরে সে দুয়ারে আমার , ধীরে ধীরে সে হাওয়ায় , ধীরে ধীরে মন পাহারা তবু কেন , মন চুরি হয়….

এখনও কি আকাশে মেঘ দেখে , জানালা খুলে তেমনি থাক বসে , এখনও কি প্রথম প্রেমের মতো , পরশ বুলায় বৃষ্টি ধারা এসে , তোমার দীঘল চুলে এখনও কি ছবি আঁকে মেঘের জত কালো , তুমি কি আমায় আগের মত বাসো ভাল…… 

কতবার চেয়েছি তোমায় মনে মনে , কতবার ডেকেছি চোখেরই অশ্রুজলে , চেয়েছি যেতে তোমার হৃদয়ের কাছে , ভালোবাসা রয়ে গেছে গোধূলীর মেঘে , হয়তো বা কোনও ক্ষনে , তুমি এসে বলবে হেসে…..

সে যে বসে আছে একা একা , রঙিন স্বপ্ন তার বুনতে , সে যে চেয়ে আছে ভরা চোখে , জানালার ফাঁকে মেঘ ধরতে ।

আমারি পরাণে আসি , তুমি যে বাজাবে বাঁশি সেই তো আমারি সাধনা , চাইনাতো কিছু আর , তুমি যে আমার......


মনের একূল-ওকূল , দিয়েছে প্রেমের মাশুল , চাহনিরা দিশেহারা , তোর কাছে চায় ইশারা , আজ বারেবার। কি করে তোকে বলবো , তুই কে আমার…..



এলো মেঘ যে এলো ঘিরে , বৃষ্টি সুরে সুরে সোনায় রাগিনী , মনে স্বপ্ন এলোমেলো , এই কি শুরু হলো প্রেমের কাহিনী

দু চোখে প্রেমেরই নেশা , খোজে আজ শরীরের ভাষা , সব চুপ কথা হই রূপকথা , চাঁদ মেঘে যে ঢাকে , মনে রং মাখে স্বপ্ন বাকে , ভালবাসারই দানে , প্রেম আমার ও হো প্রেম আমার…

স্বপ্ন আমারি তোমার দু'চোখে , আমি সাজিয়ে দিলাম , মনে মনে আমি আমার আমি কে , তোমার হাতে দিলাম, তোমায় চাওয়া , কাছে পাওয়া , সে তো আমার অধিকার.. বলো পিয়া বলো, বলোনা , কেন করো পিয়া ছলনা…

গুঁড়ো গুঁড়ো আকাশের , ধুলো যেই ঢেকে ফেলে শহর , ক্ষনিকের ভালো লাগা , মরে গেছে দিয়ে ফেরে কবর

যদি এই মুঠো ভরা শিউলী ফুল , যদি এই খুলে রাখা কানের দুল , লক্ষীটি একবার ঘাড় নেড়ে , সম্মতি দাও আমি যাই ছেড়ে , আমি কি তোমায় খুব বিরক্ত করছি ?


নিমেষে মিলিয়ে যায় পালতোলা দিন গুলো , ফাঁকা পথটা নিরথ সারাগায়ে স্মৃতি ধুলো , একটা ঝড়ে সব স্বপ্নেরা পিষে যায় , অমরত্বের দাবি সমূদ্রে মিশে যায়….


সকাল আমার গেল মিছে , বিকেল যে যায় তারি পিছে গো , রেখো না আর, বেঁধো না আর , কূলের কাছাকাছি , আমি ডুবতে রাজি আছি




দিন এখনও রঙ্গীন , এই দিন এখনও রঙ্গীন , তাকে আদরে তুলে রাখলাম , আজ ঠোঁটের কোলাজ থামালো কাজ , মন তোমাকে ছুঁয়ে দিলাম নাম , বুকের বোতাম , হারানো খাম..

ঝরানো পাতার মর্মর গানে , সেই সুরভিতে শুনিও , চাঁদ হয়ে রব আকাশের গায় , বাতায়ন খুলে দিয়ো


দেয়াল জুড়ে ছোট্ট রোদের , ছায়া বিশাল কায় , নিস্পলকে ব্যকুল চোখে , তাকিয়ে আছে ঠায় , কীসের অপেক্ষায়।

জীবন মরণ মাঝে , এসোগো বধুর সাজে , সেই তো আমারি জীবনে , তোমারি অভিসার।

নীরবতায় বাড়ছে রাত , কিসের অভিমানে , আমায় ছেড়ে যেতে পারে , কানের কাছে রাখছি হাত , পেটের কথাগুলো ঠোঁটে আনা যেতে পারে ..


প্রজাপতি ডানা ছুঁলো বিবাহ বাসরে , কেন সারারাত জেগে বাড়ি ফিরি ভোরে , ওরা মনের গোপন চেনে না ওরা হৃদয়ের রং জানে না....


ডাগর কালো আখিঁ ছিলো মিষ্টি চাহনী , সেই আখিঁতে লুকিয়ে ছিলো মিথ্যে কাহিনী । , বুঝতাম যদি আগে আমি এই ছিল মনে , প্রেম পিরিতি করিতাম না বন্ধু রে তোর শনে ।



এটা গল্প কার দেখো পড়ছে কে , ঘুমে রূপকথার দেশে ঘুরছে কে , কিছু আবদারের জানি নেই মানে , তোর সঙ্গে আজ আমাকে নে…..


ইঁট কাঠে বোনা স্বপ্নোরা বাঁধে , তোমার আমার উষ্ণ কাঁধে । , রাত দিন এক হয় দিন থেকে রাত , পরশ বুলিয়ে তোমার সে হাত ।


আকাশে ঘনালে মেঘ , বাকি পথ হেঁটে এসে , শেষ হয়েও পড়ে থাকি অবশেষে , নিভিয়ে দিয়েছি, ফুরিয়ে গিয়েছি , ডুবিয়েছি কত ভেলা , প্রেমিক নাবিক জানেনা সাগর , একা রাখা অবহেলা.....

ভাবে মন শুধু ভেবে যায় , অজানা রঙের ভাবনায় , হাজার চঠির ভাঁজে তোমরই নাম , হৃদয়ে রাখি ঠিকানা ।

ও পড়েছি সোজা মনে , জ্বলছি কোন আগুনে , চলেছি সুরে সুরে , তোমার আমার অন্তহীন , কঠিন, তোমাকে ছাড়া একদিন..

আর দেবনা যেতে , এই বৃষ্টি দিনের আকাশ , তোর দুচোখের হাসি , বড় করছে নাজেহাল।

নরম নরম ইচ্ছে গুলো , নাম না জানা পাহাড় ছুঁলো , আসলি যখন আষাঢ় হয়ে তুই , প্রথম কদিন কাটার পরেই , এসব উথাল পাথাল শুরু , আয় না তোকে আদর করে ছুঁই…..

আমি তোমার কাছেই রাখবো , আজ মনের কথা হাজার , দিয়ে তোমার কাজল আঁকবো , আজ সারা দিনটা আমার….

কত জোয়ার আইলো গেলো , বুকটা রইলো বালুচর । সুখেরই ঢেউ পাইলো না মন , পাইলো শুধু ব্যাথার ঝড় ।

দিঘল কালো কেশ রে তোর থাকতো জলমলে , মনটা আমার ভরে যেতো তোকে কাছে পেলে । , আলতা রাঙা পায়ে রে তুই ঘুরতি চারিপাশ , তোর রুপে লজ্জা পেতো শিশির ভেজা ঘাস ।

যখন শিমুল পলাশ ঝরবে পথে, , দুলবে হাওয়া বুকে , থাকবো দুজন দুজনাতে , শপথ নিয়ে সুখে।

তুই চাইলে বল , আমার সঙ্গে চল , ঐ উদাস পুরের বৃষ্টিতে , আজ ভিজবো দুজনায়।

এরঙের শহরে এক মুঠ হিম তুমি , ভালোবাসর শহরে ধূষর দেওয়ালে ,  রঙধনু যে তুমি ।

কত ফেলে আসা স্মৃতি ভর করে , রোজই হৃদয় আঙিনায় । সেই চেনা গন্ধরা স্পর্শ করে , ঘিরে থাকে এখনো আমায় ।

স্বপ্ন ছুঁয়ে স্বপ্নলোক  , হৃদয়ে লেখা হোক , দুজনার প্রেম কাহিনী ।

আজ সমীরণ আলোয় পাগল , নবীন সুরের লিলায় । , আজ শরতের আকাশ বীণা , গানের মালা বিলায় ।

কত চিঠি আসে উড়ো খামে , খুঁজি আর জুড়ে দেয় সেই গল্পকোণ , রংতুলি মাখে রূপকথায় সাজানো , বুঝি ফিরে আসে তোর স্বপ্নে রোজ ।

রোজ বিকেলে ভাবি আমি , আজ বুঝি তুই আসবি । , এসে আমার পাশে বসে , একটু ভালোবাসবি ।

আমি যে আতর ওগো, আতরদানে ভরা , আমারই কাজ হল যে গন্ধে খুশী করা । , কখনো দেখিনি আমি , কখন , আঁকিনি আম , এমন রূপসী কোন ছবি ,  শিল্পী ছিলাম তোমাকে দেখে , হয়ে গেছি আমি কবি।

দুটো হৃদয়ের নৌকো পাশাপাশি , পাল তুলে দেওয়ার ডাক এসেছে । , দুটো মন খুঁজছে জলরাশি , খুশিতে প্রেমের সাগরে ভেসেছে ।

তুমি থেকো পাশে...  , বরফ পড়ার সেই রাতে । তুমি থেকো পাশে... মন খারাপের সেই রাতে । , তুমি থেকো পাশে...

আলিঙ্গনের সেই ক্ষণে... তুমি থেকো পাশে... মুঠো বন্দী সুখের সেই মুহূর্তটাতে ।

আমরা দুজনে ভাসিয়া এসেছি যুগলপ্রেমের স্রোতে , অনাদি কালের হৃদয়-উৎস হতে। আমরা দুজনে করিয়াছি খেলা , কোটি প্রেমিকের মাঝে , বিরহবিধুর নয়নসলিলে, মিলনমধুর লাজে– , পুরাতন প্রেম নিত্যনূতন সাজে। মনের গায়ে সযতনে , বিছিয়ে দিলাম মন , লক্ষী তুমি আগলে রেখো , দুজনার আগামী জীবন ।

আজ নিশীথে অভিসার তোমারি পথে প্রিয়তম , বনের পারে নিরালায় দিও হে দেখা নিরুপম

ভুলি নাই প্রিয় ভুলি নাই , খুলি নাই রাঙ্গা রাখি , মুছি নাই প্রেম চন্দন লেখা ,  দিয়েছ যা ললাটে আঁকি , ভুলি নাই প্রিয় ভুলি নাই
মোর প্রিয়া হবে এসো রানী , দেব খোঁপায় তারার ফুল , কর্ণে দোলাব তৃতীয়া তিথি , চৈতী চাঁদের দুল
শিয়রে বসি চুপি চুপ চুমিলে নয়ন , মোর বিকশিল আবেশে তনু , নীপসম নিরূপম মনোরম ।

সুখের ঘরে আগুন জ্বেলে , বঁধু পথে পথে ঝুরিতে , নগ্ন দিনের আলোকেতে , চাহি না তোমায় বক্ষে পেতে , তুমি ঘুমের মাঝে স্বপনেতে , হৃদয় দুয়ার খুলিও
হেরিতে তোমার রূপ-মনোহর , পেয়েছি এ আঁখি, ওগো সুন্দর , মিটিতে দাও হে প্রিয়তম মোর , নয়নের সেই সাধ

তোমারি অশ্রু বলে শিউলি তলে সিক্ত শরতে , হিমানীর পরশ বুলাও ঘুম ভেঙ্গে দাও দ্বার যদি রোধি


লাল ন’টের ক্ষেতে মৌমাছি ওঠে মেতে , তাঁর রূপের আঁচে পায়ের তলার মাটি ওঠে তেতে , লাল পুঁইয়ের লতা নুয়ে পড়ে জড়িয়ে ধরে পায় গো

পুলকে বিকশিল প্রেমের শতদল , গন্ধে রূপে রসে টলিছে টলমল , তোমার মুখে চাহি আমার বানী যত , লুটাইয়া-পরে ঝরা ফুলের মত , তোমার পদতল রঞ্জিতে , সঙ্গীতে সঙ্গীতে ।

একে ঐ চাউনি বাঁকা , সুর্মা আঁকা তায় ডাগর আঁখি , বধিতে তায় কেন সাধ , যে মরেছে এ আঁখি বাণে

কে বিদেশী মন উদাসী , বাঁশে বাঁশী বাজাও বনে , সুর সোহাগে তন্দ্রা লাগে , কুসুম বাগের গুল বদনে

আজো মুকুলিকা হিয়া মাঝে , না বলা কত কথা বাজে , অভিমানে লাজে বলা যে হল না

কানাকানি হোক, জানাজানি হোক , চুপিচুপি কাছে যাওয়া। , হাসি হাসি মুখ, লুকোচুরি সুখ , ভালোবেসে কাছে পাওয়া

আসে পাশে কোনো দেশে , চেনা অচেনা ভোরে , চোখে চোখে দেখি তোকে , অচেনা স্বপ্নের ঘোরে

শূন্যে ভাসি রাত্রি এখনো গুনি , তোমার আমার নৌকা বাওয়ার , শব্দ এখনো শুনি , তাই মুখ লুকিয়ে, ঠোঁট ফুলিয়ে , বসন্তের এই স্মৃতিচারণ



যদি একদিন ভালোবাসা , সুরে তুমি গাও , সবার আড়ালে যদি আমাকে শোনাও , আমি সে গানে গাঁথবো মালা , ভরা জোছনায়…

তুই জীবনে আমার , শুধু জলে ভাসা ফুল , তোকে পেয়ে ভুলে গেছি ,  আজ কত শত ভুল

ঐ একমুঠো নীল , উড়ো হাওয়ার মিছিল , তোর আলগা সোহাগ মেখেছি

আমার ভালো লাগা তবু বেসামাল , হতে চাই আমি তোমার, বন্য ইশারায়

আজকে বুঝেছি তাই যেদিকে তে তাকাই , তোর চোখে স্বপ্ন এঁকে ঠিকানা বানাতে চাই , আজ ঘুম ভাঙা ভোর তোকেই খুঁজে যায় , তুই ছুঁলি এভাবে নিজেই নিজেকে হারাই

অকাল বাদলে, মেঘের মাদলে , মনের বদলে মনই মানায় , চোখের আড়ালে এক পা বাড়ালে , হঠাৎ হারালে, বুক কেঁপে যায়

বেড়ে গেলো হৃদয়েরই জ্বালা , থেমে গেলো সকাল , ভালো লাগে শুধু সন্ধ্যা বেলা , কেন যে আজ কাল

তুমি ছাড়া কেহ সাথী নাই আর , সমুখে আনন্ত জীবন বিস্তার , কাল পারাবার করিতেছ পার , কেহ নাই জানে কেমনে , রয়েছ নয়নে নয়নে

পুষে রাখে যেমন ঝিনুক  , খোলসের আবরণে মুক্তোর সুখ , তেমনি তোমার গভীর ছোঁয়া , ভিতরের নীল বন্দরে

জানি আমি তোমায় পাবো নিরন্তন , লোক লোকান্তরে যুগ যুগান্তর , তুমি আর আমি, মাঝে কেহ নাই , কোনো বাঁধা নাই ভুবনে

পোষা স্বপ্ন ছিঁড়ে ছারখার , প্রিয় রিংটোন লাগে সস্তা

দেখবো দেখাবো পরস্পরকে খুলে , যতো সুখ আর দুঃখের সব দাগ , আয় না পাষাণী একবার পথ ভুলে , পরীক্ষা হোক কার কতো অনুরাগ

একটি বর্ষা পেরিয়ে যায় , অঝোর বর্ষনে বিষন্নতার চাদর হয়ে , শরতের স্নিগ্ধ বিকেলে  , হাটবো কি দুজন আবারো একই ধারে

মাটিতে চন্দ্রমল্লিকা আকাশে চন্দ্রকলা  , পৃথিবী যখন ঘুমায় তাদের , শুরু হয় কথা বলা


তোমার পানে চেয়ে , আমার আঁখি হাসে , আর হঠাৎ কেন এই রাত , শেষ হয়ে ওই আসে , ফুরিয়ে যাব ভেবেই , তাই তো ব্যাকুল হই

তারই পানে চেয়ে বুঝি , তোমার নয়ন দুটি স্বপ্ন ঝরায় , ভীরু ভালবাসা ঘেরা তোমার হৃদয় , কি কথা বলিতে চায় জানি , আমারে যে আরো কাছে , নেয় সে তো টানি

কপোতীর কানে কানে কপোত কথা কয় , মৌমাছির গানে গানে পলাশ রাঙা হয়


নতুন গানের স্বরলিপি , লেখে দখিণ হাওয়া , ছন্দে তারই হেনা মধুর , তোমার কাছে পাওয়া

সংশয় ভরা কত সে দ্বন্দ্ব ভারে , যে প্রেম হারালো নিবিড় অন্ধকারে , তারই মাঝে কি গো তবুও তোমার , হৃদয়ের দীপ ধরবে

তোমার নয়নে তাই , স্বপন কুড়াতে চাই , আমার মালার এ ফুলের বাসে , রাখি তারই পরিচয়


এ জীবনে যতটুকু চেয়েছি , মনে হয় তার বেশী পেয়েছি , ও আকাশ কেন আজ এত আলো ছড়ালে , আমারে যে দিলে তুমি ভরায়ে

ঘুমপাড়ানি সুরে সুরে বাতাস আনে দোল , সোনার কাঠির ছোঁয়া লেগে হৃদয় উতরোল

ঝর ঝর কৃষ্ণচূড়া ছায়া ছড়ালো , লাজুক চোখে নীলাকাশ মায়া ভরালো ,  পলাশ বনে মৌমাছি ঐ এলো গুঞ্জন করে , আমার মনের কিছু কথা সুরের দোলায় যেন , হৃদয় দিল ভরে

সরমে জড়ানো আঁখি , মুখপানে মেলে রাখি  , বল কিছু আমি শুনি , আবেশে হৃদয় পাবার মোহে , স্বপ্নের জাল বুনি

কত প্রেরণার স্বপ্নে আমায় ভরেছো ,  তুমি যে আমায় তোমারই আপন করেছো  , তুমি এ কোন আবেশে দুলায়ে , দিলে গো আমায় ভুলায়ে

দুটি হৃদয়ের শপথ ভরানো সুরে , উলু দেয় ঐ নীড়ে জেগে থাকা পাখী , স্বপ্ন পিয়াসে ঐ তো তাদের , ঘুমে ঢুলু ঢুলু আঁখি

তোমার দুটি চোখে , ঐ যে মিষ্টি হাসি , আমায় কাছে ডেকে , বলে ভালবাসি।

আলতা আছে সিন্দুর আছে , কুসুমেতে ভোমরা নাচে , ডাগর চোখের কাজলেতে , আছেরে স্বপন

নদী যেমন করে এসে , নীল সাগরে মেশে , তেমন করেই তোমার মাঝে , আমার মিশে যাওয়া

সোনার হরিণ পালিয়ে বেড়ায় , ধরা তারে যায় কি , বন্ধ খাঁচায় বন্দী পাখী , আকাশ তারে পায় কি

তুমি শোনাবে আমি শুনব ,  তুমি দোলাবে আমি দুলব , তোমার হাসি তোমার ছোঁয়ায়  , চিরদিনেই ভুলব



গুন গুন সারাবেলা মৌমাছি ঐ গুঞ্জে , মনে হয় এ লগন আসেনি তো আগে , ওরে ও পলাশ পারুল তোরা শোন , হায় হারিয়ে গছে আমার মন

ও বাঁশীতে ডাকে কে , শুনেছি যে আজ , মোর পরাণ কাড়িতে চায় , সে রাখাল রাজ

আকাশের অস্তরাগে , আমারই স্বপ্ন জাগে , তাই কি হৃদয়ে দোলা লাগে

তবুও হৃদয় মোর ভাবে , এ পথ কোথায় নিয়ে যাবে ,  আঁধারে হারাই পাছে দিশা  , তাই তারার প্রদীপ জ্বলে নিভে


হৃদয় আমার দুলিয়ে দাও , তোমার ছোঁয়ায় ভুলিয়ে দাও  , নতুন আলো ছড়াও প্রাণের মাঝে

তাই খুশির সীমা নাই , বাতাসে তার মধুর ছোঁয়া পাই ,. জানিনা আজ হৃদয় কোথায় , হারাই বারে বারে

সূর্যের ইতিকথা  মন ভরা উষ্ণতা  , বেলায় অবেলায় সন্ধ্যার পায়চারী , আমার এই অন্তরে সাজিয়ে দিয়েছো

উধাও সাগর তুমি অঢেল নীলে  , আমি অস্তরাগ শেষ বিকেলে , তুমি কথা না রাখা নিরালা দুপুর , আমি বিমনা অবকাশ

পুরানো সব গানের কথা , ভীড় করে মনে  , কত দিনের কত ছবি , রয়েছে গাথা প্রাণে

ঝর্ণার বয়ে চলা , কি ভীষণ আনমনা , আশায় আশায় গোধূলীর লালসীমা , দুচোখের ক্যানভাসে

বাদল ভরা বিলের মাঝে ছাড়া ভিটের পর , হিজল গাছ ভিজিছে বনে বৃষ্টি থরথর , ওরে পানশি নৌকায় খাটায়ে পাল , মাঝি মাল্লায় গায় ভাটিয়াল , হিজল ফুলের গন্ধে মাতাল , উদাসী উতল হাওয়া

হইত যদি আধা রাত্রি , আমি হইতাম মোমের বাতি , ধরিয়া উজ্জল জ্যোতি , আঁধারে করতাম প্রকাশ

রাতের আকাশে তারার মিতালী , আমারে দিয়েছে সুরের গীতালী , কত যে আশায় তোমারে আমি , জ্বালিয়ে আমি রেখেছি দ্বীপালী


রাত জেগে নাটকের মহরায় চঞ্চল , মন শুধু সে ক্ষনের প্রতিক্ষায় , রাত্রির আঙ্গিনায় যদি খোলা জানালায় , একবার একবার যদি সে দাড়ায়

কিছু মাতাল হাওয়ার দল , শোনে ঝড়ো সময়ের গান , এখানেই শুরু হোক , রোজকার রূপকথা

জোছনার আলোয় তুমি আমি ঘুরবো সারারাত , ঝড়ো বাতাসে তুমি আমি ভিজবো সারারাত , সুন্দর আলো আসুক যতই অভিমানে , সুখের বুনো স্রোতে গাইবো আনমনে

তোমাকে মনে পড়বে , যখন ই জোছনা হাসে , তোমাকে মনে পড়বে , যখনি আকাশ ভেঙ্গে বর্ষা কাঁদে

মেঘ ঝরে ঝরে বৃষ্টি নামে , বৃষ্টির নাম জল হয়ে যায় , জল উড়ে উড়ে আকাশের গায়ে , ভালবাসা নিয়ে বৃষ্টি সাজায়

এই হৃদয়ে তুমি আছো , সকাল বিকেল কিংবা রাতে , সর্বনাশা ঝড় তুলে কেউ , পারবেনা তো ভাগ বসাতে

এ মন এখন তোমায় ছাড়া , পাইনা কিছু ভাবার। , ইচ্ছেগুলো দিচ্ছে তাড়া , তোমার কাছে যাবার

তুই যখন ছুঁয়ে যাস মন , রংধনুর আবীর মেখে , অসীম ভালোলাগাতে , ভাসি অন্তহীন সুখে

কি করি হায়, কি মুগ্ধতায় , আমায় ছুঁয়ে দিলে , উড়ে আসা আঁধার গুলো , আলোয় ধুয়ে দিলে

ছেঁড়া স্মৃতি ধুলো মাখা হলেও , আজও খুঁজি নানা অজুহাতে , আজ তোর সাথে বৃদ্ধ হতে চাই , হাজার বছর শুধু তোকে চাই

বুকেরই ভেতরে স্নিগ্ধ এ প্রহরে , ঘুম হয়ে ভেসে ভেসে , তুমি এলে অবশেষে আজ

তুই ছাড়া কেউ বোঝেনা , এই মনের আবদার , তাইতো ছুটে আসি রোজ , আমি বারবার

ডায়রিটার মাঝে আজও , সব স্মৃতি জমা আছে , যায় না ফিরে, দেখে যা মন , তোকে শুধুই ভালোবাসে

মনের আকাশ হচ্ছে আঁধার কালো , আর্তনাদে ভাসছে মেঘের দল , একলা ঘরে কান্না গুলো একা , দেয়াল চাপা পড়ছে চোখের জল

ক্লাস শেষে ঘরে ফিরে , তোমার চিঠি হাতে ধরে , ভাবি মুচকি হেসে , এখনই তুমি বলবে এসে

হতে চাই আমি তোমার , বন্য ইশারায়…


আর ভাবনারা আমার গানে তোমার , নতুন কোনো সুর শোনে , আজ খুশিরা আমার সাথে তোমার , আনমনে স্বপ্ন বুনে

ফুল দিয়ে গাঁথা মালা , ভূলেরই ঝড়ে , অবেলায় এই পথে , গেল যে ঝরে

জানাতে যতো যাই কথায় , হারায় ততোই মানে , ভালোবাসি তোমায় তাই জানাই গানে

ভালো তো লাগে না , একা থাকার যন্ত্রনা , তোমারো ওই দু চোখে আমার , ভালোবাসার ঠিকানা

আমার এই একলা মনের ,  মেঘ সরিয়ে আজ , আনলো কে ওই , আগমনীর সাজ

চেনা আলো, জানে ভালো , মেঘলা দিনের মানে , সকল চাওয়া হয় কি পাওয়া  , অবুঝ পিছুটানে

দূরে গ্রামোফোনে আলি আকবর , আত্মমগ্ন বাজছিল , আলি আকবর শরদের তারে , তোমায় সুরে বাঁধছিলো

আনমনে আলতো করে , হাত ছোঁয়াবো মুখে , তোমার চোখে জল গড়াবে , একটুখানি সুখে

তোমার চলা, কথা বলা , কিংবা ঠোঁটের হাসি , এসব কিছুর চাইতে তোমার , মনটা ভালোবাসি

স্মৃতির শহরে, নৌকা ভাসে , একা জলে থৈ থৈ , রাত যত হয় কষ্ট বাড়ে , আমি কি তোমার কেউ নই


আয় বৃষ্টি ঝেঁপে, এই নতুন স্টেপে , রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছাতা হারিয়ে , সবকিছু ধুয়ে, আলগোছে ছুঁয়ে , যাও তুমি আবার আমায় ভাসিয়ে

যে নদী পথ হারালো , হারালো কূল-কিনারা , সে নদী ডাকলে কাছে , কেন তুমি দাও গো সাড়া

তুমি পূর্ণিমারই আলো , আমার সোনার ময়না পাখি , চোখ খানি মোর বন্ধ করলে , তোমায় শুধু দেখি

অভিমানের আড়ি কেটে  , কোথায় তুমি যাচ্ছ হেঁটে , nহৃদয়ের চিরকুটে তুমি খুব ডানপিটে

মন বাড়িয়ে আছি দাঁড়িয়ে , তোর হৃদয়ে গেছি হারিয়ে , তুই জীবন-মরন সবই রে , তুই কি আমার হবি রে

ফুলের ফাগুন তুমি আমার মনেরও বাগিচায় , খুশবু হয়ে রবো মিসে প্রেমের ও মায়ায়

গল্প লিখি তোকে নিয়ে হৃদয়ে যখন , বড় সুখী লাগে আমার নিজেকে তখন , তুই ছাড়া পথ নেই তো পা বাড়াবার ,  তুই যে আলো আশা বেঁচে থাকবার

তোমায় নিয়ে লেখা যেন , সারা পৃথিবীর গান , প্রথম প্রেমের ছোঁয়া তুমি  ,  তুমি যে মান-অভিমান

মেঘেরা ছন্ন ছাড়া , নীলিমায় ভেসে যায় , জল হয়ে তবু যেন ঝরবে বর্ষায়  , এই নিয়তি বাধা , তোমারি সেই আঙ্গিনায়

কত আশা ভালোবাসা রয়েছে তোমায় ঘিরে , বাহুডোরে বেধে নেবো এসো আজ তোমারে


মেঘের হাতে একটি চিঠি , পাঠিয়ে দিলাম আজ, , বন্ধু আছি অনেক দূরে , হাতে অনেক কাজ , বৃষ্টি তুমি একটি বার , জানিয়ে দিও তাকে , বন্ধু তোমার পাশেই আছি , হাজার কাজের ফাঁকে

আধার কালো আকাশ কোনে , তুমি আমার ঊষা  ,হৃদয় মাঝে আছো তুমি , আমার ভালোবাসা

তোমার শহর বসন্তময় , নতুন প্রেমের উত্তাপ , আমার শহর অঝোর শ্রাবণ , বারমাস-ই নিম্নচাপ

তুমি আমার অধার ঘরের আলো , শান্ত দীঘির জলে দুষ্টু বাতাস এলোমেলো , চোখে চোখ রেখে দিয়েছি তোমায় মন , সোপেছি হৃদয় তুমিই আমার জীবন

শয়নে স্বপনে করো তুমি কেনো ডাকাডাকি , আমার হৃদয়ের খুব গভীরে তোমায় পুশে রাখি , উদাস কোনো সুখের দেশে তোমায় নিয়ে যাবো , রংধনুর ওই সাতটি রঙে তোমাকে রাঙাবো

নীল ঘুড়িটার যেই ছিঁড়েছে সুতো , চিল পাখিটার ভেঙেছে ডানা , মিল পেয়েছে আজ দুজনে দুটো , ঝিল পেরিয়ে ওরা, উড়ে যেতে চায় , দূরে যেতে চায়


বৃষ্টি থেমে যাওয়ার পর , একটা কাক ভেজা শহর , তোমার নামে পাঠালাম , একটা চকমকি পাথর

মন আকাশে বৃষ্টি আসে , রুদ্র মেঘের জুটি , আজ নতুন আলোয় আঁধার , কালোর খুনসুটি


তোর নামের পাশে সবুজ বাতি , আর তো জ্বলে না , এখন রাত্রি জুইড়া কেউ তো আর , মায়া লাগায় না

তোমারি পরশে ভালোবাসা , আসে মনেরই আঙ্গিনায় , নয়ন ভরে দেখি তোমায় , তবু বুঝি দেখার শেষ নাই

ঘাসের এই বিন্দু বিন্দু সুখ , তোর মুখ মনে করিয়ে দেয় , তোর হাতে-ই নিজেকে সমর্পণ করতে মন চায়


আদর করে ডাকতাম তোরে , বলে সোনা পাখি , হৃদপিঞ্জরে বসত ছিল প্রেমেই মাখামাখি

আজও তোমার সেই স্মৃতিগুলো , আমাকে তাড়া করে বেড়ায় , তোমার মুখের সেই মায়াবী হাসি , ক্ষনে ক্ষনে মনে পরে যায়

অহর্নিশ ঘুম হারা চোখের পাতায় , কথা হয় রাত ভর তারায় তারায় , তোমার ভেতরে আজ নীরবতা , আমায় ঘিরে রাখে

একটা পলক দেখার তাড়ায় , একটা দিন আর রাতে , আমার সকাল থমকে থাকে , কাজ থাকে না হাতে

আবার কোনোদিন সন্ধ্যা এলে নেমে , চলবো পায়ে পায়ে পথের শেষ ধারে , তোমার সাথেই যাবো থেমে , তুমিও ভুল , করে অজানা পথ ধরে , আমার কাছে এসো চলে , ঝুম বৃষ্টিতে ভিজবো দু'জনে , হারাবো মেঘেদের দলে

ধরা পড়ে গেছি আমি নিজেরই কাছে , জানি না তোমার মনেও কি এত প্রেম আছে , সত্যি যদি হয় বলুক যা বলছে নিন্দুকে , কি নামে ডেকে বলবো তোমাকে , মন্দ করেছে আমাকে ঐ দুটি চোখে

আকাশের ঐ নীল ঠিকানায় , মেঘেরা সদা ডানা ছড়ায় , ওদেরই সেই ভালোবাসা , এ মনে আজ পেয়েছে ঠাঁই , জড়াবো আদরে তোমাকে অনুভবে , আকাশের চেয়ে বেশী তোমাকেই ভালোবাসি

যতই চাই থাকতে ভুলে , ততই তোরে মনে পড়ে , তোরই স্মৃতি মোছা তো যায়না



হৃদয় পেয়েছে হাজারো আশা , নতুন করেছে এই ভালবাসা , তোমার ভাবনার হাওয়াতে উড়ি , তোমার আঁকাশে হয়েছি ঘুড়ি , এসো মুখমুখি বসি কিছুক্ষন , লাগে আরো সুখি তুমি এই জীবন , জেনে গেছে এই হৃদয়

আমার ইস্কুল যাওয়ার পথে সে যে বইসা থাকে রোজ , পিছে পিছে ঘুইরা বেড়ায় নিতে আমার খোঁজ , আমার বাড়ির , পাশে উঁকি মারে করে শুধু পন , আমি নাকি হয়েছি হায় তার জীবন মরণ

জ্যোৎস্না রাতে জোনাক জ্বলে , ব্যথার নদী বইয়া চলে , চোখের জলে বালিশ ভেজে , ঘুমতো আসে না রে


শুধু তোমায় ঘিরে , সিঁদুর রাঙা মেঘ করেছে দূরে , শুধু তোমার ছায়া মেঘের উপর , ঢেউ খেলে রোদ্দুরে

ভালোবেসে আমাকে নাও জড়িয়ে , তোমার প্রেমের ছোঁয়াতে দাও রাঙিয়ে , সকালের সোনা রোদ প্রতিদিন আমার ঘুম ভাঙ্গায় , চোখ মেলে এ হৃদয় তোমারি পরশ চায়
























Post a Comment (0)
Previous Post Next Post